ফাফ ডু প্লেসিস, ছবিঃ সংগৃহীত।

অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন ফাফ ডু প্লেসিস

দক্ষিণ আফ্রিকার সব ফর্ম্যাটের ক্রিকেট দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন ফাফ ডু প্লেসিস। আগেই ওয়ানডে দলের দায়িত্ব ছেড়েছেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট ও টি-২০ দলের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। এবার সব ফর্মেটের অধিনায়কত্ব ছাড়ার ঘোষনা দিলেন এ তারকা ব্যাটসম্যান।

পরবর্তী প্রন্মকে জায়গা ছেড়ে দেওয়ার জন্য দুই দলের দায়িত্ব থেকেই সরে দাঁড়ালেন। এই বছরের শুরুতেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন, টি-২০ বিশ্বকাপের পর আর তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তঁর জন্য কিছু দেখছেন না। এই বছরই অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে বসতে যাচ্ছে টি-২০ বিশ্বকাপের আসর। ফাফ ডু প্লেসিসের অধিনায়কত্ব ছাড়ার ইচ্ছের কথা টুইট করে জানিয়েছে ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা। একাধিক টুইটে তার পুরো বার্তাটিই তুলে দেওয়া হয়েছে। ডু প্লেসিস লিখেছেন. ‘এটিই সব থেকে কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল আমার, কিন্তু আমি কথা দিচ্ছি কুইন্টন, মার্ক ও পুরো দলের পাশে থাকব যাতে নতুন করে দল সাজিয়ে নিতে সুবিধে হয়।”

একমাস আগেই একদিনের ক্রিকেটের অধিনায়কত্ব ছেড়েছিলেন ডু প্লেসিস । তার পরই ওয়ানডে দলের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়েছিল উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি ককের হাতে। এ বার হয়তো তাঁর হাতেই উঠবে টেস্ট ও টি-২০ দলের অধিনায়কত্ব।

এমন সিদ্ধান্তের কারণ হিসেবে ডু প্লেসিস বলেন, ‘আমি যখন অধিনায়কত্বের দায়িত্ব তুলে নিয়েছিলাম তাতে আমি পুরো দায়িত্ব পালন করেছি। দলের অধিনায়ক হিসেবে নতুন পথে চালাতে চেষ্টা করেছি দলকে একদল নতুন খেলোয়াড়কে নিয়ে। আমার আশা দলের ক্রিকেটের স্বার্থে এটাই সঠিক সিদ্ধান্ত অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানো।”

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর ছিল আমার অধিনায়কত্বের সব থেকে চ্যালেঞ্জিং বছর। কারণ মাঠে ও মাঠের বাইরে ানেক কিছু ঘটেছে যাতে ানেক শক্তি ক্ষয় হয়েছে।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে আমি সম্মান ও সততার সঙ্গে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

‘‘দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট নতুন যুগে পা রেখেছে। নতুন নেতৃত্ব, নতুন মুখ, নতুন চ্যালেঞ্জ এবং নতুন কৌশল। তিন ফর্ম্যাটেই আমি খেলা চালিয়ে যাব এখন থেকে একজন খেলোয়াড় হিসেবে। এবং আমার অভিজ্ঞতা, সময় নতুন নেতৃত্ব ও দলের জন্য থাকবে।’

২০১২ সাল থেকে দক্ষিণ আফ্রিকাকে মোট ১১২টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন প্লেসিস।

 

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *