অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান দিবা রাত্রি টেস্ট ,ছবিঃটুইটার।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইনিংস হারের শংকায় পাকিস্তান

অ্যাডিলেড, ১ ডিসেম্বর, ২০১৯  : আট নম্বরে ব্যাট হাতে নেমে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করলেন পাকিস্তানের লেগ-স্পিনার ইয়াসির শাহ। তার ও বাবরের ব্যাটিং নৈপুন্যের পরও অ্যাডিলেড টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ফলো-অনে পড়েছে পাকিস্তান। প্রথম ইনিংসে অসিদের ৩ উইকেটে ৫৮৯ রানের জবাবে ৩০২ রান করে পাকিস্তান। ইয়াসির ১১৩ ও বাবর ৯৭ রান করেন।

ফলো-অনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে পাকিস্তান। তৃতীয় দিন শেষে ৩ উইকেটে ৩৯ রান করেছে তারা। ফলে ইনিংস হারের শংকায় সফরকারীরা। ইনিংস হার এড়াতে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে আরও ২৪৮ রান করতে হবে পাকিস্তানকে।

ডেভিড ওয়ার্নারের অপরাজিত ৩৩৫ ও মার্নাস লাবুশেনের ১৬২ রানের সুবাদে রানের পাহাড় গড়ে দ্বিতীয় দিন প্রথম ইনিংস ঘোষনা করে অস্ট্রেলিয়া। এরপর নিজেদের ইনিংস শুরু করে মহাবিপদে পড়ে পাকিস্তান। স্কোর বোর্ডে ৯৬ রান উঠতেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। দিন শেষে বাবর আজম ৪৩ ও ইয়াসির শাহ ৪ রানে অপরাজিত ছিলেন।

ফলো-অন এড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে পাকিস্তান। বড় জুটির লক্ষ্যে উইকেটের সাথে মানিয়ে সর্তকতার সাথে খেলতে থাকেন বাবর ও ইয়াসির। এতে সেঞ্চুরির দোড়গোড়ায় পৌঁছে যান বাবর। কিন্তু দুভার্গ্য বাবরের। সেঞ্চুরি থেকে ৩ রান দূরে থাকতে আউট হন তিনি। ১৩২ বল মোকাবেলা করে ১১টি চারে ইনিংস সাজিয়ে অস্ট্রেলিয়ার পেসার মিচেল স্টার্কের শিকার হন বাবর। ইয়াসিরের সাথে সপ্তম উইকেটে ১০৫ রান যোগ করেন বাবর।

বাবরকে শিকারের পরের বলে শাহিন শাহ আফ্রিদিকে আউট করেন স্টার্ক। তাই শূন্য হাতে ফিরেন আফ্রিদি।

দলীয় ১৯৪ রানে বাবর ও আফ্রিদির আউটে পাকিস্তানের গুটিয়ে যাওয়া সময়ের ব্যাপার ছিলো। কিন্তু সেটি হতে দেননি ইয়াসির ও দশ নম্বর ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ আব্বাস। নবম উইকেটে জুটি বেঁধে অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের হতাশায় ফেলেন ইয়াসির ও আব্বাস।

এই জুটিতেই ৩৭ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত সেঞ্চুরি তুলে নেন ইয়াসির। অবশ্য সেঞ্চুরির আগে দু’বার জীবন পান ইয়াসির। ৩৩ রানে লাবুশেনের বলে স্টিভ স্মিথ ক্যাচ নিতে ব্যর্থ হন। এরপর ৪৩ রানে লাবুশেন নিজের বলে ক্যাচ নিতে ব্যর্থ হলে দ্বিতীয়বারের মত জীবন পান ইয়াসির।

ইয়াসিরের সেঞ্চুরির পর এই জুটিতে ভাঙ্গন ধরান অস্ট্রেলিয়ার পেসার প্যাট কামিন্স। ২৯ রান করা আব্বাসকে শিকার করেন তিনি। ইয়াসির-আব্বাস জুটি দলকে ৮৭ রান উপহার দেন।

নবম উইকেট পতনের পরও দলের স্কোর তিনশ স্পর্শ করান ইয়াসির। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ইয়াসির আউট হলে ৩০২ রানে শেষ হয় পাকিস্তানের ইনিংস। ১৩টি চারে ২১৩ বলে ১১৩ রান করেন ইয়াসির। অস্ট্রেলিয়ার স্টার্ক ৬৬ রানে ৬টি ও কামিন্স ৮৩ রানে ৩ উইকেট নেন।

ইয়াসিরের সেঞ্চুরির পরও ফলো-অন এড়াতে পারেনি পাকিস্তান। তাই নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে ২০ রানেই প্রথম ৩ উইকেট হারায় পাকিস্তান। ওপেনার ইমাম-উল-হক শূন্য, অধিনায়ক আজহার আলি ৯ ও বাবর আজম ৮ রান করে ফিরেন। এই ইনিংসে জশ হ্যাজেলউড ২টি ও স্টার্ক ১টি উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

অস্ট্রেলিয়া : ৫৮৯/৩ ডি, ১২৭ ওভার
ওয়ার্নার- ৩৩৫*,
লাবুশানে- ১৬২,
আফ্রিদি- ৩/৮৮

পাকিস্তান : ৩০২ ও ৩৯/৩, ১৬.৫ ওভার
ইয়াসির- ১১৩
বাবর- ৯৭
স্টার্ক- ৬/৬৬

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *