সাকিব আল হাসান , ছবিঃসংগৃহীত।

আগামীকাল থেকেই মুক্ত সাকিব

সব ধরনের ক্রিকেটে থেকে সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞায় হতাশ হয়েছিলো ক্রিকেট বিশ্ব। তবে আজ তার নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে। আগামীকাল থেকেই তিনি মুক্ত। ক্রিকেটের কোন ফরম্যাটে ফিরতেই সাকিবের আর কোন বাঁধা থাকবে না।

আগামীকাল থেকে ক্রিকেট খেলতে ও ক্রিকেটীয় যেকোন কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন সাকিব। আগামী নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে একটি টি-২০ টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এ টুর্নামেন্ট দিয়ে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরতে প্রস্তুত তিনি। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরবেন দেশের সেরা অলরাউন্ডার।

এক বছর আগে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক সাকিবকে নিষিদ্ধ করেছিলো ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।

এরমধ্যে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করেছিলো আইসিসি। গেল বছর আইসিসি দুর্নীতি দমনের তিনটি নিয়ম ভঙ্গের অভিযোগ স্বীকার করার পর তাকে নিষিদ্ধ করা হয়।

আচরণ বিধি ভাঙ্গার অভিযোগ মেনে নেন সাকিব এবং দুর্নীতি দমন ট্রাইব্যুনালের শুনানির পরিবর্তে আইসিসির শাস্তিতে সম্মতি জ্ঞাপন করেন তিনি।

নিষেধাজ্ঞা পাবার পর আইসিসির দেয়া সকল শর্ত পূরণ করায়, কাল থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পুনরায় শুরু করতে পারবেন সাকিব।

যদি শ্রীলংকা সফরটি স্থগিত না হতো, তবে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারতেন সাকিব।

শ্রীলংকা সফর দিয়ে ফেরার লক্ষ্যে, গত সেপ্টেম্বরে মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ও নাজমুল আবেদিন ফাহিমের অধীনে চার সপ্তাহের অনুশীলন ক্যাম্প সম্পন্ন করেন তিনি। অনুশীলন পর্বটি একেবারে রুদ্ধদার অবস্থায় হয়েছিলো।

ক্রিকেটে ফিরতে মুখিয়ে আছেন সাকিব, এমনটা জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। তবে মাঠে ফেরার পর সাকিবের কাছ থেকে আহামরি কিছু আশা না করার আহ্বান করেছেন তিনি।

ছুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকায় যাবার আগে সাকিবকে নিয়ে ডোমিঙ্গো বলেন, ‘আমি তার সাথে কথা বলেছি। সে তার ফিটনেস নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করছে। সে এখন দেশের বাইরে রয়েছে। ফিট হতে তার কিছুটা সময়ের প্রয়োজন হবে এবং আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবে। আমরা জানি, সে বড় মাপের খেলোয়াড়। তাই আমি আশা করছি, বাংলাদেশের হয়ে ২০২১ মৌসুমটি দুর্দান্ত হবে সাকিবের।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাকিব অন্যান্য ক্রিকেটারের মতই, তাকে মানিয়ে নিতে কিছু ক্রিকেট খেলতে হবে। কিন্তু আপনি যদি, তার কাছ থেকে শুরুতেই প্রত্যাশা করেন এবং অলৌকিক পারফরমেন্স আশা করেন তবে আপনাকে ধৈর্য্য ধরতে হবে।’

ডোমিঙ্গো জানান, ‘সে এক বছর ধরে ক্রিকেট খেলছে না। সে খেলতে আগ্রহী। সে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার। তবে তারও পথ খুঁজে বের করতে হবে। থ্রো ও বোলিং মেশিনে খেলা এবং ১৪০ কিলোমিটার গতিতে বোলারের মুখোমুখি হবার মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে।

সেরা অলরাউন্ডারকে ড্রেসিংরুমে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন সাকিব সতীর্থরা। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘আমরা জানি অনেক বছর ধরেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সেরা খেলোয়াড় সাকিব। আমরা সকলেই অধীর আগ্রহে ড্রেসিংরুমে তার ফিরে আসার অপেক্ষায় আছি। এটি জেনে ভালো লাগছে, আমরা তাকে দেখতে পারবো, তার সাথে কথা বলতে পারবো এবং তাদের সাথে সময় কাটাতে পারবো।’

নিষিদ্ধ থাকায় অবস্থা খুব বেশি সিরিজ মিস করতে হয়নি সাকিবকে। কারন কোভিড-১৯এর কারনে বেশিরভাগ সিরিজই স্থগিত হয়েছে। নিষিদ্ধ থাকা অবস্থায় ভারত সফর মিস করেন সাকিব। ঐ সফরে দু’টি টেস্ট ও তিন ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজ ছিলো।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ, পাকিস্তানের বিপক্ষে দু’টি টি-২০ ও একটি টেস্ট এবং দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে, দু’টি টি-টুয়েন্টি ও একটি টেস্ট ম্যাচ মিস করেন সাকিব।

আগামী বছরের জানুয়ারিতে দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের পরবর্তী আন্তর্জাতিক সিরিজ।
করোনার কারনে বাংলাদেশের আটটি টেস্ট এবং বেশক’টি ওয়ানডে টি-টুয়েন্টি ম্যাচ স্থগিত হয়েছে।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *