সাকিব আল হাসান ,ছবি :সংগৃহীত।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে জয় চায় বাংলাদেশ

চট্টগ্রাম, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯  : জয়ের ধারায় ফেরার লক্ষ্য নিয়েই আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে মাঠে নামবে স্বাগতিক বাংলাদেশ। আগামীকাল জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে সকাল দশটায় শুরু হবে ম্যাচটি।

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় সফরে তৃতীয় টেস্টটি বাতিল হওযার আগে নিউজিল্যান্ড সফরে নিজেদের সর্বশেষ দুই টেস্টেই পরাজিত হয়েছিল বাংলাদেশ দল।

তারপর বিশ্বকাপের আগে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে আয়োজিত ত্রিদেশীয় ওযানডে সিরিজ জয় করে বাংলাদেশ দল। এরপর বিশ্বকাপেও শুরুটা দারুন করেছিল বাংলাদেশ দল। তবে এরপর রহস্যজনকভাবে শ্রীলংকায় তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশসহ নিজেদের শেষ পাঁচটি ম্যাচেই পরাজিত টাইগাররা।

টি-২০ ক্রিকেটেও নিজেদের সর্বশেষ সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে পরাজিত হয় বাংরাদেশ। অধিকন্ত বয়স লেভেলের দলও খুব বেশি ভাল করতে পারেনি। যে কারণে বাংলাদেশ একটি হাসফাস অবস্থায় আছে।

তাই পরাজয়ের বৃত্ত থেকে বেড়িয়ে আসার একটা বড় সুযোগ আফগানিস্তান টেস্ট। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান সমস্ত দু:শ্চিন্তা পিছনে ফেলতে ম্যাচটি জয়ের উপর গুরুত্ব দিয়েছেন।

ম্যাচ পূর্ব এক সংবাদ সম্মেলনে আজ সাকিব বলেন, ‘এক রান না একশ রানে জিতলাম সেটা বড় কথা নয়, ম্যাচ জয়ই গুরুত্বপূর্ণ।’

তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে এই মুহুর্তে আমরা জয়ের মধ্যে নেই। সেটা জাতীয়, একাডেমী কিংবা অন্য কোন দলই জয়ের মধ্যে নেই। এমনকি অনূর্ধ্ব ১০ দল ইংল্যান্ডে ফাইনালে হেরেছে। সে দিক বিবেচনায় এ ম্যাচটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা জিততে পারলে সব কিছুই আবার স্বাভাবিক হয়ে যাবে।’

টেস্ট ক্রিকেটে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদশ দলের সাফল্যের মূলে রয়েছে স্পিনাররা। যে কারণে টিম ম্যানেজমেন্ট স্পিন সহায়ক পিচ তৈরী করে আসছে।

আফগানিস্তান দলে বিশ্বমানের স্পিনার থাকলেও এ ম্যাচেও সেই স্পিন সহায়ক পিচই থাকেব বলে ধারনা করা হচ্ছে।

তবে বাংলাদেশের ধারণা টেস্ট ক্রিকেটে আফগান স্পিনারদের অভিজ্ঞতার অভাব ম্যাচের এক পর্যায়ে দেখা দেবেই। যে কারণেই তারা রশিদ খান বাহিনীর ভয় পাচ্ছেনা।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) একাদশের বিপক্ষে দুই দিনের অনুশীলন ম্যাচে নিজেদের শক্তি প্রদর্শন করেছেন আফগান স্পিনাররা। রশিদ খান এবং নতুন সেনশেসন জহির খান দুজনেই শিকার করেছেন আট উইকেট।

চার স্পিনার নিয়ে গড়া বাংলাদেশ দলের আক্রমণের বিরুদ্ধে প্রস্তুত আফগান স্পিনাররাও।

আগামীকালের ম্যাচে বাংরাদেশের বিপক্ষে নিজ দল আন্ডারডগ বলে স্বীকার করেছেন আফগানস্তিান কোচ এন্ডি মোলস। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে হুমকি দিয়ে বলেছেন একটি জয় আফগানিস্তান ক্রিকেটকে বদলে দিতে পারে।

২০০ সালে মর্যাদা পাওযার পর এ পর্যন্ত ১১৪টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ দল। যার মধ্যে জিতেছে ১৩টি। জয়ী হওয়া ম্যাচগুলোর শেষ ছয়টি এসেছে ২০১৬ সালের পর। পরাজিত হয়েছে ৮৫ টেস্টে, ড্র করেছে ১৬টি। ড্র হওযার অধিকাংশই এসেছে বৃষ্টির কল্যাণে।

গত বছর মর্যাদা পাওয়ার পর আফগানিস্তান মাত্র দুইটি টেস্ট খেলেছে। অভিষেক টেস্টে ভারতের কাছে পরাজিত হয়েছে ইনিংস ও ২৬৫ রানে। দ্বিতীয় ম্যাচটি জিতেছে সাত উইকেটে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে।

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে মাঠে নামার আগে খেলোয়াড়দের নাম ও জার্সি নম্বর সম্বলিত বাংলাদেশ দলের প্রথম টেস্ট হকে এটি।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে টাইগার দলের এ ম্যাচটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের অংশ নয়। তবে আগামী নভেম্বরে ভারত সফরে দুই টেস্ট সিরিজের আগে নাম ও জার্সি নম্বরসহ এটিই হবে ট্রায়াল ম্যাচ।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *