আইপিএল -২০২০,ছবিঃ সংগৃহীত।

আবারো আইপিএল নিয়ে অনিশ্চয়তা

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস ঠেকাতে মঙ্গলবার রাত থেকে গোটা ভারত জুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করে সে দেশের সরকার। আপাতত পুরো ভারত জুড়ে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত এ লকডাউন পরিস্থিতি বিরাজমান থাকবে। এতে আবারো অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আসন্ন আসর।

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

চলতি মাসের ২৯ তারিখ থেকে আইপিএলের ১৩তম আসর শুরুর সূচি ছিলো। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারনে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিত রাখা হয়। ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন থাকছে পুরো ভারত জুড়ে। এতে আবারো অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেল আইপিএল। ২১ দিনের লকডাউন শেষে বাতিল হতে পারে আইপিএল।

ভারত সরকার মঙ্গলবার সন্ধ্যায় লকডাউন ঘোষনার আগে, ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী বলেন, ‘আমি এই মূর্হুতে কিছুই বলতে পারছি না। স্থগিতের দিন আমার যেখানে ছিলাম, এখন সেখানেই রয়েছি। গত ১০ দিনে কিছুই পরিবর্তন হয়নি। তাই, এ ব্যাপারে আমার কাছে কোন উত্তর নেই।’

গেল সপ্তাহে আটটি ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে টেলি কনফারেন্স করেছেন গাঙ্গুুলী। মঙ্গলবার আবারো আটটি ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে টেলিফোনে কনফারেন্স করার কথা ছিলো তার। কিন্তু সেটি বাতিল করা হয়।

তবে আপতত কোন আলোচনার দিন ধার্য করেনি বিসিসিআই। যদি লকডাউনের সময় সীমা বেড়ে যায়, তবে পরবর্তী সিদ্বান্ত নিবে বিসিসিআই।

১৪ মার্চের আলোচনায় আইপিএল গর্ভনিং কাউন্সিলের পরিকল্পনা ছিলো, আগামী মে’মাসের শেষের দিকে বা জুনের প্রথম দিকে পরবর্তী আসর শুরু করা।

কিন্তু দিন দিন পুরো বিশ্বজুড়েই বেড়ে চলেছে করোনাভাইরাসের সংক্রমন। এই অবস্থায় পরিস্থিতি অনুযায়ী সিদ্বান্ত নিবে বিসিসিআই ও ফ্র্যাঞ্চাইজিরা।

করোনাভাইরাসের কারনে বিশ্বের সব ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন দ্বিপাক্ষীক সিরিজও, ঘরোয়া আসরও স্থগিত হয়েছে। ইতোমধ্যে স্থগিত হয়ে গিয়েছে অলিম্পিক্স। এক বছর পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে কোপা আমেরিকা ও ইউরো কাপ।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *