ঘাম ব্যবহার করা যাবে , ছবি: সংগৃহীত।

‘থুতু নিষিদ্ধ হচ্ছে, তবে ঘাম ব্যবহার করা যাবে’

প্রাচীন আমল থেকেই সুইং-এর জন্য ক্রিকেট বলের এক পাশের ঔজ্জলতা ধরে রাখতে থুতু ব্যবহার করে আসছে বোলাররা। কিন্তু সেই প্রাচীনতম নিয়ম নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে ক্রিকেটের প্রধান সংস্থা আইসিসি।

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

করোনাভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে ক্রিকেট বলে থুতু লাগানো নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব করেছে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। পাশাপাশি ‘নিরপেক্ষ’ আম্পায়ারের বাধ্যবাধকতারও সুপারিশ করা হয়েছে।সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে, এমন খবর জানিয়েছে আইসিসি।

আইসিসি’র ক্রিকেট কমিটির প্রধান ভারতের অনিল কুম্বলে বলেন, ‘এই মুহুর্তে আমরা ভয়াবহ সময় পার করছি। সেই প্রভাব পড়েছে ক্রিকেটেও। তাই ক্রিকেট নিয়ে বেশি ভাবতে হচ্ছে। সুরক্ষিতভাবে ক্রিকেটকে মাঠে ফেরাতে আমাদের নানা ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। আমরা সবাইকে সুরক্ষিত করে, আবারো ক্রিকেটকে মাঠে ফেরাতে চেষ্টা করছি। পুরনো বেশ কিছু নিয়ম পরিবর্তন করার সিদ্বান্ত নিচ্ছি। যাতে খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য ঝুঁকি না থাকে।’

আইসিসি’র চিকিৎসক কমিটির প্রধান ড. অইটার হারকর্ট জানান, ‘মুখের থুথু ব্যবহার এই সময়ে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। থুথুর মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমন ঘটতে পারে। তাই থুথু ব্যবহার করা যাবে না। তবে ঘামের মাধ্যমে এই ভাইরাসের কোনো সংক্রমণ হয় না। ঘামের ব্যবহারে কোন সমস্যা হবে না।’

থুথু ছাড়াও, আম্পায়ারিংয়েও ব্যাপক পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে আইসিসি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্থানীয় আম্পায়ারদের ব্যবহার বাড়ানো হতে পারে।

‘অনিরপেক্ষ’ ম্যাচ অফিশিয়াল নিয়োগ ও বাড়তি ডিআরএস যোগ করার সুপারিশও করেছে ক্রিকেট কমিটি। আগামী মাসে আইসিসি প্রধান নির্বাহীদের সভায় প্রস্তাবগুলো গৃহীত হতে পারে।

টেস্ট ক্রিকেটে ম্যাচ রেফারি, মাঠের দুই আম্পায়ার, থার্ড আম্পায়ার আইসিসি’ নির্ধারন করে দিবে। তবে চতুর্থ আম্পায়ার ঠিক করবে স্বাগতিকরা।

ওয়ানডে’তে ম্যাচ রেফারি, মাঠে দু’আম্পায়ারের একজনকে আইসিসি’ নির্ধারন করবে। মাঠের অন্য আম্পায়ার নির্ধারন করবে স্বাগতিক দেশ। পাশাপাশি তৃতীয় এবং চতুর্থ আম্পায়ারও নির্ধারন করবে স্বাগতিক দেশ।

আর টি-২০তে ম্যাচ রেফারি নির্ধারিত করবে আইসিসি। এছাড়া বাকি সকল আম্পায়ার নির্ধারিত করবে স্বাগতিকরা।

তবে ক্রিকেট আবার শুরু হলে, প্রত্যক সফরকারী দলকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। পাশাপাশি ভ্রমন জটিলতাও ভাবাচ্ছে আইসিসিকে। তাই সফরে গেলে দীর্ঘ সময় ব্যয় হবে। হুট করে নিরপেক্ষ আম্পায়ার দেওয়া কষ্টকর হয়ে যাবে।

এই নিয়ম শিথিল করার প্রস্তাব দিবে কুম্বলের কমিটি, ‘সফরে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন থাকছে। ভ্রমন জটিলতাও থাকছে।

তাই আগের মত ম্যাচ আয়োজনের পরিকল্পনা করা যাবে না। সব বিবেচনায় নিয়ে কমিটি স্বল্প সময়ের জন্য স্থানীয় অফিশিয়াল নিয়োগের প্রস্তাব করেছে।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *