ছবি: নিউজিল্যান্ড বনাম পাকিস্তান।

পাকিস্তানের বিপক্ষে বড় সংগ্রহের পথে নিউজিল্যান্ড

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের অনবদ্য সেঞ্চুরিতে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় দিন শেষে বড় সংগ্রহের পথে রয়েছে নিউজিল্যান্ড। প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের ২৯৭ রানের জবাবে দ্বিতীয় দিন শেষে ৩ উইকেটে ২৮৬ রান করে কিউইরা। ফলে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে এখনো ১১ রানে পিছিয়ে নিউজিল্যান্ড।

১১২ রানে অপরাজিত আছেন সদ্যই টেস্ট র‌্যাংকিংএ ব্যাটসম্যানদের তালিকায় শীর্ষে ওঠা উইলিয়ামসন। পাকিস্তানের বিপক্ষে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে প্রথম টেস্টে ১২৯ ও ২১ রান করে অস্ট্রেলিয়ার স্টিভেন স্মিথ ও ভারতের বিরাট কোহলিকে ছাপিয়ে শীর্ষে ওঠেন উইলিয়ামসন। নতুন বছরের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান হিসেবে নামও লেখালেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক।

সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টের প্রথম দিনই গতকাল ২৯৭ রানে অলআউট হয় পাকিস্তান। পাকিস্তানকে গুটিয়ে দিয়ে বড় অবদান নিউজিল্যান্ড পেসার কাইল জেমিসন। ৬৯ রানে ৫ উইকেট শিকার করেন তিনি।

আজ দ্বিতীয় দিন নিজেদের ইনিংস শুরু করে নিউজিল্যান্ড। ব্যাট হাতে ভালো শুরুর ইঙ্গিতই দিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনার টম লাথাম ও টম বøান্ডেল। সতর্কতার সাথে খেলতে থাকেন তারা। তবে দলীয় ৫২ রানে বøান্ডেলকে বিদায় দিয়ে নিউজিল্যান্ড শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন পাকিস্তানের পেসার ফাহিম আশরাফ।

বøান্ডেলের বিদায়ের চার বল পর থামতে হয় লাথামকেও। সঙ্গীকে হারিয়ে ব্যক্তিগত ৩৩ রানে আউট হন তিনি। শিকার হন পাকিস্তানের আরেক পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদির।

দুই ওপেনারকে হারানোর পর জুটি বাঁধেন উইলিয়ামসন ও অভিজ্ঞ রস টেইলর। তাদের কাছ থেকে বড় জুটির প্রত্যাশায় ছিলো দল। কিন্তু সেটি হতে দেননি পাকিস্তানের আরেক পেসার মোহাম্মদ আব্বাস।

দলীয় ৭১ রানে টেইলরকে বিদায় দেন আব্বাস। ৩৩ বলে ১২ রান করেন টেইলর।

টেইলরকে নিয়ে না পারলেও, চতুর্থ উইকেটে হেনরি নিকোলসকে নিয়ে ঠিকই বড় জুটি গড়েছেন উইলিয়ামসন। টেইলের বিদায়ের সময় উইলিয়ামসনের রান ছিলো ৫। ৫৮তম ওভারে ১০৫ বল খেলে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক উইলিয়ামসন।

আর ১০৭তম বলে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন নিকোলস। দু’জনের হাফ-সেঞ্চুরিতে ৬৪তম ওভারে ২শ রানের কোটা স্পর্শ করে নিউজিল্যান্ড। ৭০তম ওভারে পাকিস্তানের পেসার নাসিম শাহ’র বলে ¯িøপে জীবন পান উইলিয়ামসন। তখন তার নামের পাশে ৮২ রান ছিলো। ঐ ওভারে নাসিমকে চারটি বাউন্ডারি মারেন উইলিয়ামসন।

আর ৭২তম ওভারের শেষ বলে ফাহিমকে বাউন্ডারি মেরে টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৪তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন উইলিয়ামসন। সেঞ্চুরির স্বাদ নিয়ে দিন শেষ করেন তিনি। ১৭৫ বলে ১৬টি চার মারেন উইলিয়ামসন। তবে টেস্ট ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরির অপেক্ষা নিয়ে দিন শেষ করতে হয়েছে নিকোলসকে। ১৮৬ বলে ৮টি চারে ৮৯ রানে অপরাজিত একবার জীবন পাওয়া নিকোলস।

চতুর্থ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ২১৫ রানের জুটি গড়া উইলিয়ামসন-নিকোলস খেলেছেন ৩৪০ বল। চতুর্থ উইকেটে টেস্ট ক্রিকেটে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের এটিই সর্বোচ্চ রানের জুটি। ফলে ভেঙ্গে গেছে ১৯ বছর আগের রেকর্ড। ২০০১ সালে হ্যামিল্টনে পাকিস্তানের বিপক্ষে চতুর্থ উইকেটে ১৪৭ রান করেছিলেন সাবেক অধিনায়ক স্টিফেন ফ্লেমিং ও ক্রেইগ ম্যাকমিলান।

বল হাতে পাকিস্তানের পক্ষে আফ্রিদি-আব্বাস-ফাহিম ১টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর  :

পাকিস্তান : ২৯৭/১০, ৮৩.৫ ওভার
ব্যাটিং: 
আজহার- ৯৩
রিজওয়ান- ৬১

বোলিং:
জেমিসন- ৫/৬৯

নিউজিল্যান্ড : ২৮৬/৩, ৮৫ ওভার
ব্যাটিং :
উইলিয়ামসন- ১১২*
নিকোলস- ৮৯*

বোলিং:
আব্বাস- ১/৩৭

টস- নিউজিল্যান্ড, ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *