মুশফিকুর রহিম , ছবিঃ সংগৃহীত।

পাকিস্তান সফরে যাচ্ছেন না মুশফিক

ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০  : পারিবারিক কারণেই আসন্ন পাকিস্তান সফরে যাচ্ছে না বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। গতরাতে শেষ হওয়া ‘বঙ্গবন্ধু’ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল শেষে আসন্ন পাকিস্তান সফরে না যাবার কথা জানান মুশি। পুরো পাকিস্তান সফরেই যাবেন না মুশফিক। বিশেষ ‘বঙ্গবন্ধু’ বিপিএলে খুলনা টাইগার্সের নেতৃত্বে ছিলেন মুশফিক। ফাইনালে তার দল ওয়েস্ট ইন্ডিজের আন্দ্রে রাসেলের রাজশাহী রয়্যালসের কাছে ২১ রানে ম্যাচ হারে। ফলে ফাইনালে উঠেও শিরোপা জিততে পারেননি মুশফিক।

অনেক জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে ১৪ জানুয়ারি দুবাইয়ে এক বৈঠকে পাকিস্তান সফর নিশ্চিত হয় বাংলাদেশ দলের। তবে আসন্ন সফর নিয়ে আলোচনা শুরুর আগ থেকেই পাকিস্তান সফরে না যাবার কথা আগেভাগেই জানিয়ে রাখেন মুশফিক। এমনটা বলেছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও। বিসিবি বস যখন বলেন, তখনও বাংলাদেশ দলের পাকিস্তান সফর অনিশ্চিত ছিলো।

তবে গতকাল নিজ মুখেই পাকিস্তান সফরে না যাবার কথা জানিয়ে দিলেন মুশফিকুর। তিনি বলেন, ‘আমি ইতোমধ্যেই বলেছি, পাকিস্তান সফরে আমি যাব না। আমি অনেক আগেই এমন সিদ্বান্ত নিয়েছি এবং বোর্ডকে জানিয়েছি। এজন্য বোর্ডের কাছে আমি চিঠিও দিয়েছি। আমার পরিবার পাকিস্তান সফর নিয়ে চিন্তিত, তারা আমাকে যেতে দিতে চায় না। আমার পরিবার ভয়ে শঙ্কিত, এমন মানসিকতা নিয়ে সেখানে গিয়ে আমি খেলতে পারি না।’

বাংলাদেশের হয়ে না খেলাটা অনেক বড় অপরাধ বলেও মনে করছেন মুশফিক। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের হয়ে না খেলতে পারাটা হতাশার। এরচেয়ে বড় পাপ আমার কাছে নেই।’

শুধুমাত্র জাতীয় দল থেকেই নয়, পাকিস্তান টি-২০ লিগ পিএসএলেও নিজের নাম দেননি মুশফিক। তিনি বলেন, ‘পিএসএল পুরোটা পাকিস্তানে হবে জেনে আমি ঐ লিগে আমার নাম দিইনি। পরিবার এটির সাথে এক মত হতে পারেনি।’

ভবিষ্যতে পাকিস্তান সফর করার ইচ্ছা পোষণ করেছেন মুশফিক। তবে আগামী দু’বছরে যদি সেখানকার পরিস্থিতি ভালো হয় বা আরও অন্যান্য দল সেখানে ক্রিকেট খেলে তবেই পাকিস্তানে যাবে তিনি, ‘আমি একমত যে পাকিস্তানে পরিস্থিতি উন্নতি হয়েছে। যখন আমি দেখবো অন্যান্য দল সেখানে যাচ্ছে, তখন আমি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবো। আমি আগে পাকিস্তানে গিয়েছি, ক্রিকেট খেলার সেটি দারুণ জায়গা।’

তিন দফায় পাকিস্তান সফর করবে বাংলাদেশ জাতীয় দল। তিন দফায় তিনটি টি-২০, দু’টি টেস্ট ও একটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ২৪ জানুয়ারি থেকে টি-২০ সিরিজ দিয়ে শুরু হবে সফর। পরের দু’টি টি-২০ হবে ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি। তিনটি ম্যাচই হবে লাহোরে। টি-২০ সিরিজ শেষেই দেশে ফিরবে বাংলাদেশ দল।

এরপর দ্বিতীয় ধাপে পাকিস্তান সফরে টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। রাওয়ালপিন্ডিতে প্রথম টেস্ট হবে ৭ থেকে ১১ ফেব্রæয়ারি। ঐ টেস্ট খেলে আবারো দেশের ফিরে আসবে বাংলাদেশ।

তৃতীয় ও শেষ ধাপে আাগমী এপ্রিলে আবারো পাকিস্তান সফরে যাবে বাংলাদেশ। ঐ সফরে ৩ এপ্রিল একমাত্র ওয়ানডে খেলবে টাইগাররা। ওয়ানডে হবে করাচিতে। ওয়ানডের পর ৫ এপ্রিল থেকে করাচিতে সফরের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *