বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ,ছবিঃসংগৃহীত।

পাকিস্তান সিরিজে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

আগামী মাসে পাকিস্তান সফরের আগে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে দাপুটে জয় চায় বাংলাদেশ।

এপ্রিলে পাকিস্তানে তৃতীয় ও শেষ দফার সফরে একটি ওয়ানডে এবং সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। তিন ফর্মেটেই জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করতে পারলে আগের দু’বারের চেয়ে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে সফরে যাবে বাংলাদেশ। এমনটিই বলেছেন দলের অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান । পাকিস্তানে সিরিজের প্রথম টেস্টের আগে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিলো বাংলাদেশ।

তবে পাকিস্তান সফরের আগে আত্মবিশ্বাসের জন্য জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আরও একটি দাপুটে জয় চান মেহেদি। দ্বিতীয় ওয়ানডের মত জিম্বাবুয়েকে লড়াই করার সুযোগ দিতে নারাজ তিনি।

দ্বিতীয় ওয়ানডে ছাড়া জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সফরের সবগুলো ম্যাচেই দাপট দেখিয়ে জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। আজ মেহেদি বলেন, ‘টেস্টের পর ওয়ানডেতে ও প্রথম টি-২০তে দাপট দেখিয়ে জয় পেয়েছি আমরা। তাদের লড়াই করার কোন সুযোগই দেইনি আমরা। আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে আমরা দ্বিতীয় টি-২০ খেলতে নামবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি আমরা দাপট দেখিয়ে সিরিজটি জিততে পারি, তবে আমাদের আত্মবিশ্বাস অনেকখানি বেড়ে যাবে। এটি আমাদের অনেক বেশি দরকার কারন পাকিস্তানে আমাদের একটি ওয়ানডে ও টেস্ট রয়েছে। আশা করি, এই আত্মবিশ্বাস সিরিজে আমাদের উপকার করবে।’

কিন্তু‘আধিপত্য’ নিয়ে কথা বললেও দল অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী বা আত্মতুষ্ঠিতে ভুগছে না বলেও উল্লেখ করেন মিরাজ।

মেহেদি বলেন, ‘আমরা অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী নই। আমাদের জন্য ইতিবাচক হচ্ছে, ব্যাটসম্যানরা রানের মধ্যে আছেন। এমনকি ব্যাটিং অর্ডারের অনেকেই ব্যাট করার সুযোগ পাননি। যদি ওয়ানডের দিকে তাকানো হয়, ব্যাটিং অর্ডারে ১ থেকে ৫ নম্বর পর্যন্ত ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছে এবং আধিপত্য বিস্তার করেছে। অন্য ব্যাটসম্যানরাও রানের জন্য মুখিয়ে আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘জিম্বাবুয়েকে আমরা সহজভাবে নিচ্ছি না। সংক্ষিপ্ত ভার্সনের ক্রিকেটে, যেকোন সময়ে মোমেন্টাম পরিবর্তন হতে পারে। তাই আমরা সতর্ক এবং একই সাথে ক্রিকেটে আমাদের ব্র্যান্ড আগ্রাসী মনোভাব ধরে রাখার লক্ষ্য।’

মেহেদি জানান, অন্যান্য দলের বিপক্ষেও কিভাবে আগ্রাসী মনোভাবে খেলা যায় তা ড্রেসিংরুমেও আলোচনা হয়ে থাকে। তিনি বলেন, ‘আমি ড্রেসিংরুমে আসার পর, আমি শুনতে পেরেছি অন্যান্য দেশের বিপক্ষে কিভাবে আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে হবে এ নিয়ে আলোচনা। যে অবস্থাতেই হোক, পরের সিরিজেও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। ড্রেসিং রুমে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ইতিবাচক আলোচনা করেছেন এবং তিনি বলেছেন, যদি আমরা আমাদের ব্র্যান্ড ক্রিকেট আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে খেলতে পারি তবে পরের সিরিজেও তা করতে সক্ষম হবো।’

মেহেদি এটিও বলেন, কৃতিত্ব শুধুমাত্র জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই নেয়া উচিত নয়। তিনি বলেন, ‘আমরা অতীতে বড় দলকে হোয়াইটওয়াশ করেছি। তাই যেকোন অবস্থাতেই আমাদের আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। যদি আমরা এই সিরিজ থেকে আত্মবিশ্বাসী হতে পারি তবে আমার মনে করি, ভবিষ্যতেও এটি আমাদের সহায়তা করবে।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *