টেন্ডুলকার -ব্রেট লী , ছবিঃসংগৃহীত।

বোলারদের থুথুর বিকল্প চান টেন্ডুলকার-লী

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারণে বোলারদের থুথুর ব্যবহার নিয়ে মহাচিন্তায় পড়েছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। করোনার কারনে বলে থুথু ব্যবহার করলে সংক্রমন আরও বাড়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই ক্রিকেটের প্রধান সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) কর্তৃক থুথু নিষিদ্ধ হলে,  থুথুর বিকল্প চান টেন্ডুলকার ও লী।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ

বলে থুথু ব্যবহারে সাময়িক নিষেধজ্ঞার সুপারিশ করেছে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। তবে এখনো এ নিয়ে আইসিসি কিছু বলেনি। আগামীকাল আইসিসির বৈঠক রয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে, বলে থুথু ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞাসহ টি-২০ বিশ্বকাপ নিয়ে সিদ্বান্ত নিবে আইসিসি।

তাই আইসিসির ঐ বৈঠকের আগে থুথু’র বিকল্প চেয়ে অভিমত ব্যক্ত করেছেন টেন্ডুলকার-লী।

করোনাভাইরাস থাকাকালীন ক্রিকেট পুনরায় শুরু হলে, বলের উজ্জলতা বাড়াতে থুথুর ব্যবহারে আইসিসি সাময়িকভাবে নিষেধাজ্ঞা দিবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

বলের এক পাশে থুথু বা ঘাম ব্যবহার করে বাতাসের সহায়তায় পেস বোলাররা সুইং করে থাকেন। ঘাম ব্যবহারে অনুমতি বহাল থাকবে, কিন্তু ঘাম খুব বেশি কার্যকরী হবে না।

টেন্ডুলকারের ১০০এমবি অনলাইন অ্যাপে লি বলেছেন, ‘আইসিসির আরও কিছু উপায় দেখার দরকার আছে। বোলারদের কিছু দিতে তাদের সহায়তা করা উচিত। এমন কোন পদার্থ ব্যবহার বরা যেতে পারে, যাতে সকলে ব্যবহার করতে পারে এবং সবাই সম্মত হয়। যাতে ব্যাটসমানরাও খুশী হবে, বোলাররাও খুশী হবে।’

টেন্ডুলকার বলেছেন, ঠান্ডার দেশে খেলতে ঘাম ব্যবহার করা যাবে না। তিনি বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডে খেললে ঘামানোর উপায় নেই। ১৯৯২ সালে আমি যখন ইর্য়কশায়ারের হয়ে খেলি, মে মাসের শুরুতে আমি সেখানে গিয়েছিলাম এবং তখন অনেক ঠান্ডা ছিলো। হোভে আমি যে ম্যাচটি খেলেছি, আমি তা ভুলতে পারি না। আমার শরীরে পাঁচটি জামা ছিলো।’

অস্ট্রেলিয়ার বল প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান কোকাবুরা, বলের উজ্জলতা ধরে রাখতে একটি বিশেষ মোম বাজারে আনার ইঙ্গিত দিয়েছে। কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই কৃত্রিম পদার্থকে ব্যবহারে অনুমতি দিতে নারাজ।

দু’বার বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য থাকা লী বলেন , আম্পায়ারের উচিত বোলারদের কিছু ছাড় দেয়া। কোন ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার আগে থুথু ব্যবহারে দুই-তিনবার সর্তকতা দেয়া উচিত।

তিনি আরো বলেন, ‘আমি আপনাকে গ্যারান্টি দিতে পারি, যদি খেলোয়াড়দের বলা হয় তারা এটি করতে পারবে না, তারা উদ্দেশ্যে করে এটি করবে না। কিন্তু আমি মনে করি, এটি স্বাভাবিকভাবেই এটি ঘটবে।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *