অস্ট্রেলিয়া বনাম ভারত টেস্ট ম্যাচ ২০২১,ছবি : সংগৃহীত।

ব্রিসবেন টেস্টে ৩০৭ রানে পিছিয়ে ভারত

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বৃস্টি বিঘ্নিত ব্রিসবেন টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে ৮ উইকেট হাতে নিয়ে ৩০৭ রানে পিছিয়ে রয়েছে সফরকারী ভারত। প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার ৩৬৯ রানে রানের জবাবে ২ উইকেটে ৬২ রান করেছে টিম ইন্ডিয়া। বৃষ্টির কারনে আজ শেষ সেশনটি ভেস্তে গেছে।

সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্টের প্রথম দিন ডান-হাতি ব্যাটসম্যান মার্নাস লাবুশেনের ১০৮ রানের সুবাদে ৫ উইকেটে ২৭৪ রান করেছিলো অস্ট্রেলিয়া।

দলীয় ২১৩ রানে পঞ্চম উইকেট পতনের পর জুটি বেঁধেছিলেন ক্যামেরুন গ্রিন ও অধিনায়ক টিম পাইন। ষষ্ঠ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৬১ রানের জুটি গড়ে দিন শেষ করেছিলেনন গ্রিন ও পাইন। গ্রিন ২৮ ও পাইন ৩৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।

আজ গ্রিন-পাইন দলের স্কোর ৩শ স্পর্শ করান। টেস্ট ক্যারিয়ারের নবম হাফ-সেঞ্চুরিও তুলে নেন পাইন। অর্ধশতকে পা দিয়েই থামতে হয় তাকে। ভারতের পেসার শারদুল ঠাকুরের বলে ডিপে রোহিত শর্মাকে ক্যাচ দিয়ে আউট হওয়ার আগে ৬টি চারে ১০৪ বলে ৫০ রান করেন পাইন। ষষ্ঠ উইকেটে ২০৪ বলে ৯৮ রান যোগ করেছিলেন গ্রিন-পাইন।

দলীয় ৩১১ রানে পাইনের আউটের পরের ওভারেই বিদায় নেন গ্রিনও। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে গ্রিনকে বোল্ড করেন ভারতের স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর। ১০৭ বলে ৬টি চারে ৪৭ রান করেন গ্রিন।

দুই স্বীকৃত ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর বেশিক্ষণ ক্রিজে টিকতে পারেননি টেল-এন্ডার প্যাট কামিন্স। ২ রান কামিন্সকে লেগ বিফোর আউট করেন শারদুল। ফলে ৩১৫ রানে অষ্টম উইকেটের পতন ঘটে অস্ট্রেলিয়ার। এতে অসিদের বাকী ২ উইকেট দ্রæত তুলে নেয়ার স্বপ্ন দেখছিলো ভারত। কিন্তু সেটি হতে দেননি শেষ তিন ব্যাটসম্যান মিচেল স্টার্ক-নাথান লিঁও ও জশ হ্যাজেলউড।

নবম উইকেটে মারমুখী ব্যাট করে ৪০ বলে ৩৯ রান যোগ করেন লিঁও ও স্টার্ক। দলীয় ৩৫৪ রানে লিঁওকে বোল্ড করে এই জুটি ভাঙ্গেন সুন্দর। ২২ বলে ৪টি চারে ২৪ রান করেন লিঁও।

এরপর শেষ ব্যাটসম্যান হ্যাজেলউডকে নিয়ে আবারো একটি জুটি গড়ার চেষ্টা করেন স্টার্ক। ধীরলয়ে এগোতে থাকেন তারা।

শেষ পর্যন্ত হ্যাজেলউডকে বোল্ড করে ৩৬৯ রানে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের সমাপ্তি টানেন অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা বাঁ-হাতি পেসার টি নটরাজন। ২৭ বলে ১১ রান করেন হ্যাজেলউড। ১টি ছক্কায় ৩৫ বলে ২০ রানে অপরাজিত থাকেন স্টার্ক। ভারতের নটারাজন-শারদুল ও সুন্দর ৩টি করে উইকেট নেন।

মধ্যাহ্ন-বিরতির পর নিজেদের ইনিংস শুরু করে ভারত। সপ্তম ওভারে ভারতের ওপেনার শুভমান গিলকে থামান অস্ট্রেলিয়ার কামিন্স। মাত্র ৭ রান করেন গিল।

দলীয় ১১ রানে প্রথম উইকেট পতনের পর ভারতের রানের চাকা ঘুড়েছে আরেক ওপেনার রোহিত শর্মার ব্যাটে। ওয়ানডে মেজাজে খেলে ভারতের স্কোর ৫০ অতিক্রম করান রোহিত। নিজেও এগিয়ে যাচ্ছিলেন হাফ-সেঞ্চুরির দিকে।

কিন্তু ২০তম ওভারের পঞ্চম বলে নিজের উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন রোহিত। অস্ট্রেলিয়ার স্পিনার লিঁওকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে স্টার্কের তালুবন্দি হন রোহিত। ৬টি দৃষ্টিনন্দন চারে ৭৪ বলে ৪৪ রান করেন রোহিত। দ্বিতীয় উইকেটে চেতেশ্বর পূজারার সাথে ৮২ বলে ৪৯ রান দলকে এনে দেন রোহিত। এরমধ্যে ৫১ বলে ৪০ রানই ছিলো হিটম্যানের।

দলীয় ৬০ রানে দ্বিতীয় উইকেট পতনের পর ইনিংসের মেরামতের দায়িত্ব পান পূজারা ও অধিনায়ক আজিঙ্কা রাহানে। উইকেটে বাঁচানোতে মনোযোগি হওয়ায়, রানের চাকাই ঘুরছিলো না ভারতের। এর মধ্যে চা-বিরতির সময়ও হয়ে যায়। জুটিতে ৩৭ বলে অবিচ্ছিন্ন ২ রান তুলে বিরতিতে যান পূজারা ও রাহানে।

তবে বিরতির পর আর মাঠে নামতে পারেননি পূজারা ও রাহানে। বৃষ্টির কারনে পুরো সেশনটিই বাতিল হয়ে যায়। তাই আগামীকাল ৩০ মিনিট আগে শুরু হবে তৃতীয় দিনের খেলা।

পূজারা ৪৯ বলে ৮ ও রাহানে ১৯ বলে ২ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার কামিন্স ও লিঁও ১টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
অস্ট্রেলিয়া : ৩৬৯/১০, ১১৫.২ ওভার (লাবুশেন ১০৮, পাইন ৫০, নটারাজন ৩/৭৮)।
ভারত : ৬২/২, ২৬ ওভার (রোহিত ৪৪, পূজারা ৮*, লিঁও ১/১০)।

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *