বিরাট কোহলি , ছবি: সংগৃহীত।

রান তাড়া করার রহস্য জানালেন কোহলি

বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান কে? তা নিয়ে কিছু তর্ক থাকতেই পারে, কিন্তু রান তাড়া করার বিষয়টি যখন চলে আসে, তখন কোন কিছুই অস্বীকার উপায় থাকে না। বিরাট কোহলি যে, রান তাড়া করার ক্ষেত্রে বিশ্ব সেরা, তাতে কোন সন্দেহ নেই। অন্তত ওয়ানডে ক্রিকেটে এবং সকলেই তা অকপটে স্বীকার করে নেন, রান তাড়ায় ওয়ানডেতে কোহলিই বিশ্বসেরা।

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধ

রান তাড়ায় বিশ্বসেরা তকমা পাওয়ায়, কোহলিকে ‘কিং কোহলি’ নামেই অ্যাখায়িত করা হয়।

বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম তার নিজের লাইভ শোতে কোহলির কাছে জানতে চান, কিভাবে রান তাড়া করায় এতটা সফল হয়েছেন!

তামিম জানতে চান, বড় টার্গেট তাড়া করতে কোহলি কিভাবে তার মনস্থির করেছিলেন।

কোহলি বলেন, ‘এটি খুবই সাধারন। কখনও কখনও মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশের উইকেটরক্ষক) উইকেটের পেছন থেকে কথা বলে আমাকে সাহায্য করেছিলেন।’

কিন্তু পরে তিনি সিরিয়াস মুডে বলেন, ‘শৈশব থেকেই আমার এমন মানসিকতা। আমি যখন শৈশবে খেলা দেখতাম এবং ভারত রান তাড়া করায় ব্যর্থ হয়েছে, আমি তখন নিজেকেই বলতাম আমি থাকলে ভারতের হয়ে ম্যাচ জিততে পারতাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘আসলে দু’টি বিষয় কাজ করেছে, আমার আত্মবিশ্বাস এবং আমার শৈশবের বিশ্বাস। আমি জুনিয়র সহকর্মীদেরও বলেছি, আপনার বিশ্বাস থাকা উচিত, আপনিও যেকোন টার্গেট তাড়া করতে পারেন।’

কোহলি বলেন, রান তাড়া করার চাপ উপভোগ করেন। তিনি জানান, ‘চাপ আমাকে সেরাটা বের করে আনতে সহায়তা করে।

আমি সর্বদা বিশ্বাস করি, আমি এটি করতে পারি। আমি বিশ্বাস করি, রান তাড়া করতে পারলে কোন ব্যাটসম্যান তার ব্যক্তিগত টার্গেটও পূরণ করার সুযোগ পাবে। কারন ব্যাটিং শুরুর আগে, আমি জানি যে লক্ষ্য কি, কখন আমাকে ধৈর্য্য ধরতে হবে এবং বোলারদের বিপক্ষে লড়তে হবে।’

কোহলি জানান, প্রতিপক্ষকে বিবেচনা না করে সঠিক মানসিকতা নিয়ে খেলার প্রতি জোড় দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘আপনি দলকে ম্যাচটি জিতাতে পারবেন, এই বিশ্বাসটা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আপনি আগে কতটি ম্যাচ খেলেছেন এবং প্রতিপক্ষ কে, তাতে কিছু আসে যায় না।’

বিশ্বাস করেন, আমি সবসময় এভাবেই ভেবেছি এবং এটিই সাফল্যের মূল চাবিকাঠি। আমার থেকে কেউ বেশি অভিজ্ঞ হয়েও যদি কেউ করে থাকে, আমি কখনও ভাবিনি আমি কিভাবে আমার দলের জন্য এটি করতে পারি। বরং, এটিকে আমি বড় সুযোগ হিসেবেই দেখি। যদি কেউ ব্যর্থ হয়, আমি ভাবি, আমি এটি করতে পারি। আমি সবসময় বিশ্বাস করি, আমি দলের হয়ে খেলাটি জিততে পারি।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *