সৌম্য সরকার , ছবি : সংগৃহীত।

শ্রীলংকায় লম্বা সফর টিম ওয়ার্ক হিসেবে কাজ করবে : সৌম্য

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারনে শ্রীলংকায় সিরিজ শুরুর বেশ আগেভাগে যেতে হবে এবং সফরের দৈর্ঘ্যও বড় হবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। কারন সিরিজ শুরুর আগে সেখানে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে পুরো দলকে। এটিকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন দেশের বাঁ-হাতি ওপেনার সৌম্য সরকার। সিরিজ শুরুর আগে বেশিদিন একত্রে থাকাটা টিম ওয়ার্ক হিসেবেই কাজ করবে বলে মনে করেন সৌম্য। যা দলের উপকারে আসবে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ

২৪ অক্টোবর থেকে শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শুরু হবে বাংলাদেশের। তবে শ্রীলংকা সফরের জন্য ২৩ সেপ্টেম্বর দেশ ছাড়বে টাইগাররা। অর্থাৎ, এক মাস আগে শ্রীলংকা যাচ্ছে বাংলাদেশ।

শ্রীলংকায় পৌঁছে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে মোমিনুল হকের দলকে। কোয়ারেন্টাইন শেষে সিরিজের প্রস্তুতির জন্য হাই পারফরমেন্স দলের বিপক্ষে অনুশীলন ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

করোনাভাইরাসের কারনে গেল মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে খেলার বাইরে রয়েছে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা।

সৌম্য বলেন, ‘প্রথমে সবকিছু নতুন বলেই মনে হয় কিন্তু আমি মনে করি, দল যদি সেখানে একমাস আগে যায়, তবে অনুশীলন করা যাবে। সুরক্ষা সবকিছুর আগে, তাই দীর্ঘদিন সেখানে থাকাটাকে আমরা টিম ওয়ার্ক হিসেবেই বিবেচনা করবো।’

করোনাভাইরাসের মাঝেও, শ্রীলংকা সফর নিশ্চিত হওয়ায়, খুশী সৌম্য। তিনি বলেন, ‘অবশেষে আমরা ক্রিকেট শুরু করতে যাচ্ছি, এটি খুবই আনন্দায়ক। যখন আমি ইংল্যান্ডের খেলা দেখতাম, আমার খারাপ লাগতো। এখন শুনেছি, আমাদের একটি সফর নিশ্চিত হয়েছে, এটি খুবই ভালো দিক।’

যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখার ব্যাপারে বেশ সর্তক সৌম্য। তিনি বলেন, ‘সুরক্ষা হলো বড় ইস্যু। আমাদের দল, পরিবারের মত। তাই আমাদের নিরাপদ থাকতে হবে এবং প্রয়োজনে আমরা আইসোলেশনে থাকবো।’

গেল বছরের সেপ্টেম্বরে আফনিস্তানের বিপক্ষে দেশের হয়ে সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন সৌম্য। ঐ বছরই জুলাইয়ে শ্রীলংকায় সর্বশেষ ওয়ানডে খেলেছেন তিনি। তবে চলমান বছরের মার্চে দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ টি-২০ ম্যাচ খেলেছিলেন সৌম্য।

জিম্বাবুয়ের সর্বশেষ সিরিজের পারফরমেন্সে খুশী সৌম্য। তার আশা করছেন, শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের দলে সুযোগ পাবেন তিনি।

সৌম্য বলেন, ‘সর্বশেষ আমি টি-২০ সিরিজ খেলেছি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। আমি নতুন করে শুরু করার চেষ্টা করবো।

পারফরমেন্স করতেই হবে এবং দলের প্রয়োজনে অবদান রাখতে হবে। যেহেতু আমি এখন ক্রিকেটের মধ্যে আছি, তাই শতভাগ দেয়ার চেষ্টা করবো।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *