বিপিএল

সময়মতো বিপিএল আয়োজনের ব্যাপারে আশাবাদি বিসিবি

ঢাকা, ৭ অক্টোবর ২০১৯  : সংশয় থাকলেও, সময়মতো বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেট আয়োজন করার ব্যাপারে আশাবাদি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এবারের আসরটি ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’ নামে আয়োজনের ঘোষণা আগেই দিয়ে রেখেছিলো বিসিবি। টুর্নামেন্ট যথা সময়ে আয়োজনের বিষয়ে আবারো আশাবাদ ব্যক্ত করলেন বিপিএলের টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।

আগামী ডিসেম্বরে বিপিএলের সপ্তম আসর নিজেরাই আয়োজনের ঘোষণা দেয় বিসিবি। কোন ফ্র্যাঞ্চাইজিকে আসন্ন আসরে রাখা হবে না বলেও জানায় তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আগামী আসরকে স্মরণীয় করে রাখার সিদ্বান্ত নেয় বিসিবি।

বিসিবি জানিয়েছে, ‘বিপিএলে অংশ নেয়া ছয়টি ফ্র্যাঞ্চাইজির কোনটিই ‘বিশেষ এ এডিশনে’ অংশগ্রহণের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেনি, কোন টিম স্পন্সরও এখন পর্যন্ত এগিয়ে আসেনি।’

দলগুলোর জন্য স্পন্সর আনা, এককভাবে টুর্নামেন্ট পরিচালনা করা ও দলগুলোকে গাইডও করার সিদ্বান্ত নিয়েছে বিসিবি। টিম স্পন্সরের জন্য আগ্রহ দেখানোর সময়সীমা ছিলো ১৭ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর।

টিম স্পন্সরশীপের জন্য বিদ্যমান ফ্র্যাঞ্চাইজিরাও এই টুর্নামেন্টে অংশ নিবে বলে ধারনা করা হয়েছিলো, কিন্তু তেমনই কিছুই হয়নি।

এদিকে, বঙ্গবন্ধু বিপিএলের জন্য নতুন করে নিয়ম-কানুন নির্ধারন করা হবে বিসিবি এবং এখনো আরও অনেক কাজ বাকী আছে যা নিলামের আগে এই মাসেই শেষ করা হবে এবং খেলার শর্তগুলোও নির্ধারণ করা হবে।

বঙ্গবন্ধু বিপিএল নিয়ে শংকা তৈরি হলেও তা উড়িয়ে দিয়েছেন জালাল। সঠিক সময়ে বিপিএল আয়োজন করার কথা জানিয়ে জালাল বলেন, ‘আগামী ৬ ডিসেম্বর বিপিএল শুরু করার দৃঢ় ইচ্ছা আছে আমাদের। বিসিবি ইতোমধ্যে বড় লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু করেছে। টুর্নামেন্টটি সম্পাদনের জন্য এখানে জড়িত আছেন প্রধান নির্বাহি (নিজামউদ্দিন চৌধুরি) ও বোর্ডের বিভিন্ন পরিচালকরা। তারা এখন এটি নিয়ে হোমওয়ার্ক করছেন। শীঘ্রই পরিকল্পনাগুলো প্রস্তুত করা হবে এবং যারা টিম স্পন্সর হবার জন্য আগ্রহ দেখিয়েছে আমরা তাদের সাথে বসবো।’

জালাল আরও জানান, বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান এই বিশেষ বিপিএল আয়োজনের দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সভাপতি এই বছরের বিপিএল আয়োজনের দায়িত্ব নিয়েছেন। বিপিএল গর্ভনিং কাউন্সিলের সাথে এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করবেন।

কাগজপত্রের কাজ শেষ হয়ে গেলে, আমরা এই টুর্নামেন্টটি কার্যকর করতে পারি। টুর্নামেন্টের অগ্রগতি সর্ম্পকে বোর্ড সভাপতি ভালোভাবে জানেন। সম্ভবত আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা সিদ্বান্ত নিতে পারি।’

সরাসরি বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে চুক্তি করা বিদেশী খেলোয়াড়দের এ বিশেষ আসরে অংশগ্রহণের সুুযোগ দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করছে বিসিবি। জালাল জানান, আগের আসরের মত আসন্ন টুর্নামেন্টের ফরম্যাট রাখা হয়েছে। চলতি বছরের ৬ ডিসেম্বর বিপিএলের সপ্তম আসর অনুষ্ঠিত হবে।

জালাল বলেন, ‘শেষ কয়েকটি আসরের মত একই রকম হবে বিপিএলের বিশেষ আসরটি। চারজন বিদেশী খেলোয়াড় একাদশে খেলতে পারবেন। কিছু বিদেশী খেলোয়াড় ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে চুক্তি করেছিলো এবং তারা যদি ফ্রি হয় তবে আমরা তাদের এই টুর্নামেন্টে খেলতে অফার করতে পারি।’

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *